Home / বিনোদন / মৃত্যুর আগে একবার তারেক রহমানের সাক্ষাৎ চান ন্যান্সি

মৃত্যুর আগে একবার তারেক রহমানের সাক্ষাৎ চান ন্যান্সি

Nancyচলতি সময়ের আলোচিত কণ্ঠশিল্পী ন্যান্সি। ২০১১ সালে পান জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। গান ও ব্যক্তিজীবন দুটি নিয়েই পাঠকদের কাছে অন্যতম কৌতূহল জন্ম দিয়েছেন তিনি। সম্প্রতি ঘুমের ওষুধ খেয়ে ন্যান্সির আত্মহত্যার চেষ্টা নিয়ে খবর বেরোয় বিভিন্ন মিডিয়ায়। এরপর সুস্থ হয়ে সাক্ষাৎকার দেন বেশ কিছু মিডিয়ায়। এক সাক্ষাৎকারে আলোচিত এই তারকা মৃত্যুর আগে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে সাক্ষাতের আকাঙ্ক্ষা ব্যক্ত করেছেন।

প্রসঙ্গত, পারিবারিকভাবেই ন্যান্সি বিএনপির সমর্থক। কয়েক মাস আগে ফেসবুকে তার একটি রাজনৈতিক স্ট্যাটাস নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয় মিডিয়ায়। ওই স্ট্যাটাসের কারণে তিনি বিভিন্নভাবে নিগৃহীত হয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন। 

একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত ন্যান্সির সাক্ষাৎকারের চুম্বকাংশ এখানে তুলে ধরা হলো-

প্রশ্ন: আপনি এ সময়ের জনপ্রিয় একজন কণ্ঠশিল্পী। উঠতি ক্যারিয়ারের এ সুবর্ণ সময়ে কেন আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন?
ন্যান্সি: দেখুন, আত্মহত্যা চেষ্টার খবরটাই মিথ্যা।

প্রশ্ন: তাহলে এতগুলো ঘুমের ওষুধ কেন খেলেন?
ন্যান্সি: ফেসবুকে আমার রাজনৈতিক অবস্থান তুলে ধরার পর থেকে একের পর এক আমার স্টেজ শো বাতিল হচ্ছিল। রিহ্যাব ফেয়ার, ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের শো, হোটেল প্যালেসিয়া থেকে শুরু করে বেশকয়েকটি বড় বড় শো-তে আমন্ত্রণ জানানোর পরও শুধু রাজনৈতিক কারণে আমাকে বাদ দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে আমি বেশ হতাশ হয়ে পড়ছিলাম। ঘটনার দিন রাতে কোনোভাবেই আমার ঘুম আসছিল না। আমি বোকামি করে একের পর এক ৮-১০টি ঘুমের ওষুধ খাই। এরপর আর কিছুই মনে নেই।

প্রশ্ন: ডাক্তার বলেছেন, আপনি ৬০টি ঘুমের ট্যাবলেট খেয়েছিলেন। এটা কি তাহলে মিথ্যা?
ন্যান্সি: এটা টোটালি রং ইনফরমেশন। আমার বিরুদ্ধে পুরোটাই অপপ্রচার।

প্রশ্ন: আপনার অবস্থা এতটাই খারাপ ছিল, ময়মনসিংহ থেকে ঢাকায় পাঠাতে বাধ্য হলেন ডাক্তাররা, এটা তো অস্বাভাবিক একটা অবস্থা!
ন্যান্সি: ময়মনসিংহে ডাক্তাররা আমার চিকিৎসা করতে ভয় পেয়েছিলেন। তারা মনে করেছেন, ন্যান্সির চিকিৎসা করতে গিয়ে কোনো ভুল হয়ে গেলে সারা দেশে হৈচৈ পড়ে যাবে। বোঝেনই তো, সেলিব্রেটি হলে যা হয়! মিডিয়ার ভয়েই তারা আমাকে ঢাকায় পাঠান।

প্রশ্ন: কিন্তু ঢাকায় এসে আপনাকে ল্যাব এইডের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। অবস্থা নিশ্চয় গুরুতর ছিল?
ন্যান্সি: এটা ডাক্তারদের ভুল ছিল। কারণ আইসিইউতে নেয়ার মতো খারাপ অবস্থা আমার ছিল না। এরপর আমার পারিবারিক ডাক্তার তাদের ভুল ধরিয়ে দিলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আমাকে কেবিনে স্থানান্তর করে।

প্রশ্ন: আপনি বলেছেন, রাজনৈতিক কারণে আপনাকে গান গাইতে বাধা দেয়া হচ্ছে। কিন্তু আমরা যতটা জানি, আপনি বিএনপির কোনো সক্রিয় সদস্য নন, তাহলে এ প্রশ্ন তোলা কি অবান্তর নয়?
ন্যান্সি: দেখুন, ফেসবুকের ওই একটা স্ট্যাটাসই আমার কাল হয়েছে। ফরিদপুরে আমার প্রোগ্রাম ছিল। আগের রাতে ফোন করে আমাকে বলা হয়েছে, আপু আপনি এখানে আসবেন না। আপনার প্রতিপক্ষ আপনাকে খুন করে ফেলবে।

প্রশ্ন: গানের শো না করতে দেয়ার অন্তরালে আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ কী?
ন্যান্সি: ওই যে, আমি নাকি বিএনপি করি।

প্রশ্ন: আপনাকে তো মনির খান বা বেবী নাজনীনের মতো কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচিতে দেখা যায় না। আসলেই কী আপনি বিএনপি করেন?
ন্যান্সি: দেখা না যাক, আমি বিএনপির পক্ষে স্ট্যাটাস লিখেছি, ওটাই আমার অপরাধ। আমি বিএনপির সামান্য একজন সমর্থক মাত্র। সেটা পারিবারিকভাবেই। এটা বলাই কি আমার অপরাধ? তাহলে আমি কি স্বাধীন মতামতও দিতে পারব না? দেখুন আমার এখন ২৭ বছর বয়স। বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ৬০ বছর। সে হিসাবে আমি আরো ৩৩ বছর বাঁচব। এ সময়ের মধ্যে যদি বিএনপি ক্ষমতায় না আসে তাও আমি বিএনপিই করবো।

প্রশ্ন: ফেসবুকে তো অনেক তারকাই বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষে-বিপক্ষে লেখেন। তাদের তো এমন সমস্যায় পড়তে হচ্ছে না…
ন্যান্সি: অন্যদের কথা জানি না। আমার সমস্যা হয়েছে এটা বুঝতে পারি।

প্রশ্ন: আমরা জানি আপনি একজন প্রফেশনাল শিল্পী!
ন্যান্সি: কিন্তু আমার গায়ে তো বিএনপির সিল লাগিয়ে দেয়া হয়েছে। এখন সবাই সেভাবেই ট্রিট করছে।

প্রশ্ন: তাহলে কি পুরোদমে রাজনীতি শুরু করবেন?
ন্যান্সি: আমি একজন শিল্পী। রাজনীতি করার কথা কখনও ভাবিনি। কিন্তু এখন যে অবস্থা তাতে মনে হচ্ছে বিএনপির কোনো না কোনো অঙ্গ সংগঠনে আমাকে যোগ দিতে হবে।

প্রশ্ন: আপনি ফেসবুকে যা লিখেছিলেন, সেই অবস্থানে অনড় আছেন?
ন্যান্সি: হ্যাঁ, আমাকে গুলি করে মেরে ফেলা হলেও আমি আমার অবস্থান বদলাব না।

প্রশ্ন: তাহলে আর হতাশার কী আছে?
ন্যান্সি: না, হতাশা নয়। কথা হলো আমার তো কোনো অপরাধ নেই। কেন তাহলে আমার স্টেজ শো বাতিল করে দেবে বা বাধা দেবে। আমাকে তো জোর করে রাজনীতিতে ঠেলে দেয়া হয়েছে।

প্রশ্ন: কবে থেকে রাজনীতিতে নামছেন?
ন্যান্সি: ভাবছি। দু-তিন মাসের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেব।

প্রশ্ন: খালেদা জিয়ার সঙ্গে আবার দেখা করবেন?
ন্যান্সি: দু’বার দেখা হয়েছে। ম্যাডামকে আমার অসাধারণ মনে হয়েছে। আবারও দেখা করার ইচ্ছা আছে।

প্রশ্ন: গান আর রাজনীতি কি একসঙ্গে চলবে?
ন্যান্সি: আর দু’মাস আমি দেখব। এর মধ্যে যদি স্টেজ শো আর গানের কাজ না আসে তাহলে আমি গান ছেড়ে দেব। গানই যদি গাইতে না পারি, তাহলে ঢাকায় থেকে কি হবে! চলে যাব গ্রামের বাড়িতে। আর দশটা সাধারণ নারীর মতো আমিও স্বামী-সন্তান নিয়ে দিন কাটাব।

প্রশ্ন: স্টেজ-শো না থাক, আপনার হাতে তো সিনেমার গানের কাজ রয়েছে। তাছাড়া আপনি নিজেও তো বিত্তশালী।

ন্যান্সি: দেখুন, দূর থেকে অনেক কিছুই মনে হয়। বাস্তবটা অনেক কঠিন। গত দু’মাসে আমি মাত্র চারটা ফিল্মের গানে ভয়েস দিয়েছি। এ মাসে আমার কোনো কাজ নেই। শুধু সুবীর নন্দী দাদার সঙ্গে একটা ডুয়েট গান করেছি। এভাবে কি চলবে? বাসাভাড়া, বড় মেয়ে রোদেলার স্কুল, অন্যান্য খরচ? এগুলো কোত্থকে আসবে।

প্রশ্ন: এ অর্থ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে তো আপনার শ্বশুরবাড়ির সঙ্গেও ঝামেলা, তাই না?
ন্যান্সি: একদম মিথ্যা। শাশুড়ি আমার মায়ের মতোই। মা মারা যাওয়ার পর এখন তিনিই আমার মা। তার সঙ্গে কি আমার বিরোধ হতে পারে! তাছাড়া আমি একজন তালাকপ্রাপ্ত মহিলা। প্রথম পক্ষের আমার একটা মেয়ে আছে। সবকিছু মেনে নিয়েছেন যে শাশুড়ি, তার সঙ্গে আমার কি কোনো দ্বন্দ্ব থাকতে পারে!

প্রশ্ন: আপনি এখন শ্বশুরবাড়িতে নিয়মিত টাকা দিতে পারছেন না, এমন অভিযোগ শোনা যায়!
ন্যান্সি: এগুলো পুরোটাই অবান্তর। গসিপ।

প্রশ্ন: আপনার বাবার সঙ্গেও আপনার দূরত্ব, তার দ্বিতীয় বিয়ের কারণে?
ন্যান্সি: এটাও ঠিক নয়। আমার বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন এখন থেকে ১৪ বছর আগে। তখন আমার মা ও আমরা এটা মেনে নিয়েছি। সুতরাং এখন প্রশ্ন ওঠা অবান্তর।

প্রশ্ন: আপনি নিজেই বললেন, আপনি বিএনপির সমর্থক। বঙ্গবন্ধুকে আপনি কীভাবে দেখেন?
ন্যান্সি: বঙ্গবন্ধু বঙ্গবন্ধুই। তাকে নিয়ে বিতর্ক চলে না। কিন্তু কেউ যদি শেখ হাসিনাকে বঙ্গবন্ধু মনে করেন তাহলেই ভুল। আর এখন সেটাই হচ্ছে। একটা স্বৈরাচারী সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসে সবকিছু স্তব্ধ করে দিচ্ছে, এটা হতে পারে না। একজন গানের শিল্পীও এ রাষ্ট্রে নিরাপদ নন! জনগণ যদি এটা মেনে নেয়, তাহলে আর কিছুই করার নেই।

প্রশ্ন: আপনার শেষ ইচ্ছে কী?
ন্যান্সি: মৃত্যুর আগে আমি একবার তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করতে চাই।

প্রশ্ন: গান নিয়ে স্বপ্ন?
ন্যান্সি: গানের স্বপ্ন তো সবই নষ্ট করে দিচ্ছে এ সরকার।

প্রশ্ন: আপনি সাংবাদিকদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন, এটা বড় অভিযোগ?
ন্যান্সি: একটা উদাহরণ দিলে পরিষ্কার হবে। একদিন একটা অনলাইনের এক সাংবাদিক আমাকে ফোন করলেন। আমি বললাম, ব্যস্ত আছি পরে ফোন করুন। ঘণ্টাখানেক পর ওই অনলাইন লিখে দিল, মুখ খুলছেন না ন্যান্সি। এটা কোনো কথা হলো? ওরাই মূলত বাজারে রটিয়েছে, আমি সাংবাদিকদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করি।

One comment

  1. hello my dear friends
    .how are you

Leave a Reply