Home / বিশ্ব / লন্ডনে ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ সার্টিফিকেট বিক্রির রমরমা ব্যবসা !! বিবিসির প্যানোরমা বদলে দিয়েছে দৃশ্যপট

লন্ডনে ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ সার্টিফিকেট বিক্রির রমরমা ব্যবসা !! বিবিসির প্যানোরমা বদলে দিয়েছে দৃশ্যপট

Leadnews1ইব্রাহিম খলিল : মাত্র ৩ সপ্তাহ আগেও লন্ডনের বিভিন্ন ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ টেস্ট সেন্টারে চলছিলো সার্টিফিটে বিক্রির রমরমা ব্যবসা। পরীক্ষা না দিয়ে কেবলমাত্র অর্থের বিনিময়ে চলছিলো এসব সার্টিফিকেট বিক্রি। এছাড়াও একজনের পরীক্ষা অন্যজন দিয়ে সার্টিফিকেট অর্জনের মতো অসাধু কাজও চলছিলো টেস্ট সেন্টারগুলোতে। কিন্তুু হঠাৎ করে পাব্বে গেলো সেই দৃশ্যপট। গত ১০ ফেব্রুয়ারী বিবিসিতে পূর্ব লন্ডনের মাইল এন্ড-এ অবস্থিত একটি ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ টেস্ট পরীক্ষা সেন্টারের জালিয়াতির রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পর থেকেই এই সেক্টরে নতুন এক মোড় নেয়। হোম অফিসের ভয়ে এখন আর ইস্ট লন্ডনের কোন সেন্টারেই নতুন করে বি-২ টেস্ট নিচেছনা। ফলে চরম সংকটে পড়েছেন ভিসা নবায়ন করতে যাওয়া পরীক্ষার্থীরা।
ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ টেস্ট ইটিএস এর টোয়েক সার্টিফিকেট আর গ্রহন করছেন হোম অফিস। অথচ  লন্ডনেই টোয়েক এর সবচেয়ে বেশী টেস্ট সেন্টার ছিলো। এই সুবাদে রমরমা সার্টিফিকেট ব্যবসা করেছে অসাধু পরীক্ষা সেন্টারগুলো। কিন্তু হোম অফিসের এই নিষেধাজ্ঞার ফলে শত শত পরীক্ষার্থী পড়েছেন নতুন করে ঝামেলায়। ভিসা নবায়ন, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিসহ, পাউস ভিসা প্রার্থীরাও রয়েছেন দু:শ্চিন্তায়। তবে বিকলপ হিসেবে সিটি এন্ড গিহ্বস, আইএলটিএস, ক্যামব্রিজ ইংলিশ টেস্ট, ট্রিনিটি কলেজ লন্ডন টেস্টসহ  অন্যান্য টেস্ট থাকলেও শিক্ষার্থীরা সহজেই বেচে নিতেন টোয়েক টেস্টকে। টেস্ট সেন্টারগুলো অর্থ উপার্জনের লোভে উচচ ফিতে টোয়েক সার্টিফিকেট বিক্রির করেছেন। কিন্তুু বিবিসির প্যানোরোমা অনুষ্ঠানের পর এখন  ঘা ডাকা দিয়েছেন তারা।
ইর্ন্টানাল (সেন্টারের অভ্যান্তরে) পরীক্ষা পদ্ধতির কারনেই এই সিস্টেমকে অপব্যবহার করেছে একটি অসাধু চক্র বলে জানান পূর্ব লন্ডনের হ্যামলেট ট্রেনিং সেন্টারের পরিচালক জামাল আহমদ। পরীক্ষা জালিয়াতির এমন ঘটনা পুরো পরীক্ষা পদ্ধতিকেই কলুষিত করেছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। এর মাধ্যমে অনেক সাধারন পরীক্ষার্থীরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন বলে তার মত। এ থেকে উত্তরনের জন্য তিনি পরিদর্শকের উপস্থিতিতে এক্সটারনাল পরীক্ষা পদ্ধতির উপর জোর দেওয়ার দাবী জানান।
যত্রতত্র সেন্টাগুলো অনুমেদন না দিয়ে মনিটরিং কার্যকর করার উপর পরামর্শ দিয়েছেন এসএফএস কনসালটেন্সি ফার্মের চীফ এক্সিকিউটিভ আবু সাদাত । তার মতে এই অসাধু উপায় থেকে বেরিয়ে আসার জন্য  স্টুডেন্টদের ইন্টাভিউ পদ্ধতি চালু করা উচিত।
হোয়াইটচ্যাপলে একমাত্র বি-২ সেন্টার হচেছ ইউনিভার্সেল প্রফেশনাল এন্ড ভোকেশনাল কলেজ। টোয়েক সার্টিফিকেট হোম অফিস বাতিল করার পর এই সেন্টারেও স্টুডেন্টদের আগমন কমে গেছে। কলেজটির মার্কেটিং এক্সিকিউটিভ সাব্বির আহমদের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, স্টুডেন্টদের এখন আর টোয়েকের দিকে থাকিয়ে বরং আইএলটিএসসহ অন্যান্য টেস্ট প্রদানের দিকে মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন।
তবে আর যাই হোক এই সংকট একদিক দিয়ে ভালো ফলাফল নিয়ে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন আলফা কনসালটেন্টের চীফ এক্সিকিউটিভ অফিসার লুৎফুর রহমান। তার মতে, এখণ স্টুডেন্টরা পয়সা দিয়ে সার্টিফিকেট ক্রয়ের চেয়ে পড়ালেখায় বেশী মনোযোগ দিবেন।

Leave a Reply